ঢাকা, সোমবার, ২১ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ()
শিরোনাম
Headline Bullet নেত্রকোনা জেলা প্রশাসক কর্তৃক সরকারি শিশু পরিবার পরিদর্শন Headline Bullet রাজবাড়ীর বালিয়াকান্দিতে জমি নিয়ে বিরোধে মারপিটে মহিলাসহ ৩জন আহত: Headline Bullet কুষ্টিয়ার হিরা জামে মসজিদের অজুখানা ও প্রসাবখানার বেহাল অবস্থা Headline Bullet বাংলাদেশ-ভারতের সেই কৃত্রিম দেয়াল আর নেই-ওবায়দুল কাদের Headline Bullet বাজারে হঠাৎ ধানের সরবরাহ কমে যাওয়ায় দাম বেড়েছে চালের Headline Bullet কুষ্টিয়ায় আরও এক জমি জালিয়াতের হোতা হাজি মফিজুল ইসলাম Headline Bullet কুষ্টিয়ায় প্রকাশ্য দিবালোকে মালিকানা জমির মার্কেট ভেঙ্গে দখল.৫ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ৫ কোটি টাকার ক্ষতিপূরণ Headline Bullet পচা পেঁয়াজের ট্রাক ফিরিয়ে নিল ভারত Headline Bullet সরকারি রাস্তা দখল করে দোকান নির্মাণ করছে ইউপি চেয়ারম্যানের ভাই Headline Bullet কুমারখালীতে ইয়াবা ট্যাবলেটসহ দম্পতি গ্রেফতার

বালিয়াকান্দি ইউএনও’র হস্তক্ষেপে ঋণমুক্ত হলেন ক্ষুদ্রনৃগোষ্ঠী সমিতিভুক্ত ঘর পাওয়া সুবিধাভোগীরা:

এস এম রাহাত হোসেন ফারুক রাজবাড়ী প্রতিনিধিঃ রাজবাড়ীর বালিয়াকান্দি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা একেএম হেদায়েতুল ইসলামের সরাসরি হস্তক্ষেপে অবশেষে ঋণমুক্ত হলেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর প্রকল্পের ক্ষুদ্রনৃগোষ্ঠী সমিতিভুক্ত ঘর পাওয়া সুবিধাভোগীরা। পাশাপাশি সভাপতিদের দূর্নীতির দায়ে ৫টি কমিটি ভেঙ্গে পূণ:গঠন করার বিষয়টিও প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। ইউএনও’র কঠোর হস্তক্ষেপে সভাপতিরা টাকা ফেরতে বাধ্য হয়। ঘর পাওয়া ক্ষুদ্রনৃগোষ্ঠীর সুবিধাভোগীরা ঋণমুক্ত। সমিতি ভেঙ্গে পূণ:গঠন প্রক্রিয়াধীন। বালিয়াকান্দি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ে মঙ্গলবার দুপুরে অভিযুক্ত পূর্বমৌকুড়ী ক্ষুদ্র-নৃগোষ্ঠী সমাজ উন্নয়ন সংস্থার সভাপতি সুশান্ত কুমার (পাইলট বলে পরিচিত), বহরপুর আদিবাসী সঞ্চয় ও ঋণদান সমবায় সমিতির সভাপতি সমীর কুমার দাস, হাড়িখালি আদিবাসী সঞ্চয় ও ঋণদান সমবায় সমিতির সভাপতি বিধান সরকার, জামালপুর ইউনিয়ন আদিবাসী সঞ্চয় ও ঋণদান সমবায় সমিতির সভাপতি বিনোদ, বালিয়াকান্দি দলিত নৃ-গোষ্ঠী উৎপাদনমুখী সমবায় সমিতির সভাপতি প্রদীপ দাস ঘর দেয়া বাবদ বিভিন্ন ইস্যুতে গৃহিত টাকা ফেরত প্রদান করেন। ঘর দিলেন প্রধানমন্ত্রী, টাকা নিলেন সমিতির নেতারা ৫টি সমিতির ৫ জন সভাপতিকে নিয়ে একটি অনুসন্ধানী প্রতিবেদন প্রকাশ হয়। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা একেএম হেদায়েতুল ইসলাম ৬ সদস্য বিশিষ্ট দু,টি তদন্ত কমিটি গঠন করেন। তদন্তে অনুসন্ধানের সত্যতা মেলে। জানা যায়, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় কর্তৃক বিশেষ এলাকার জন্য উন্নয়ন সহায়তা (পার্বত্য চট্টগ্রাম ব্যতীত) শীর্ষক কর্মসূচীর অধীনে বালিয়াকান্দি উপজেলায় দুটি কিস্তিতে ৫টি সমিতির অধীনে ১৫টি ঘর বরাদ্দ হয় বালিয়াকান্দি উপজেলায়। সমিতির সভাপতিদের দূর্নীতি ধরাপরার পর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা একেএম হেদায়েতুল ইসলাম বিষয়টি অধিকতর গুরত্ব দিয়ে ২টি তদন্ত কমিটির মাধ্যমে তদন্ত করান। তদন্তে সুবিধাভোগীরা বিভিন্ন এনজিও থেকে ও ধার দেনা করে সভাপতিদের টাকা দিয়ে ঋণগ্রস্থ হয়ে পড়ে। সংশ্লিষ্ট এনজিও প্রতিনিধিদের সাথে উপজেলা নির্বার্হী কর্মকর্তা কথা বলে সুবিধাভোগীদের ঋণের একটি তালিকা নেন। অনুসন্ধানী প্রতিবেদন এবং ভুক্তভোগীদের তথ্য মিলিয়ে কার কাছ থেকে কত টাকা নিয়েছেন সভাপতিরা সে বিষয়টি উদঘাটন করেন । পরবর্তীতে সভাপতিদের স্বীকারোক্তি নেয়া হয়। মঙ্গলবার দুপুরে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ে ৫টি সমিতির ৫ সভাপতির হাত থেকে নগদ অর্থ নিয়ে শক্তি ফাউন্ডেশন, ব্র্যাক, এসডিসিসহ অন্যান্য এনজিও প্রতিনিধিরা ঋণ বইতে টাকা জমা করে। যেসকল ভুক্তভোগী জমানো টাকা থেকে সভাপতিদের টাকা দিয়েছিলো সরাসরি তাদের হাতে নগদ অর্থ প্রদান করেন সভাপতিরা। শক্তি ফাউন্ডেশনের হিসাবরক্ষক মো. শাহাজাদা মোল্লা বলেন, দীর্ঘদিন কয়েকজন ক্ষুদ্রনৃগোষ্ঠীর ঋণের টাকা বকেয়া ছিলো। ইউএনও স্যারের সুদৃষ্টি ও সরাসরি হস্তক্ষেপে তারা ঋণমুক্ত হয়েছে। আমরাও আমাদের টাকা পেয়েছি। টাকা ফেরত পাওয়া একাধিক ভুক্তভোগী জানান, তারা বিভিন্ন ইস্যুতে সভাপতিদের টাকা দিতে বাধ্য হয়েছিলেন। এতে তারা ঋণগ্রস্থ হয়ে পড়েন। ইউএনও স্যারের কঠোর হস্তক্ষেপে আজ তারা ঋণ মুক্ত হয়েছেন। এজন্য আমরা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা একেএম হেদায়েতুল ইসলাম স্যারের প্রতি চিরকৃতজ্ঞ। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা একেএম হেদায়েতুল ইসলাম বলেন, ঘর প্রদানের নামে সমিতির নেতারা অর্থ গ্রহণ করেছে। তারপর দুটি তদন্ত কমিটি করা হয়। তদন্ত কমিটি তদন্ত শেষে প্রতিবেদন দাখিল করেছে। তদন্তে সত্যতা মিলেছে। সমবায় সমিতি আইন অনুযায়ী সংশ্লিষ্ট সমিতি ভেঙ্গে সমিতি পূণ:গঠন করা হবে। মঙ্গলবার দুপুরে সভাপতিদের গ্রহণ করা উৎকোচ ভুক্তভোগীদের ঋণ এবং নগদ প্রদান করা হয়। রাজবাড়ী জেলা প্রশাসক দিলসাদ বেগম বলেন, সরকারী ঘরের বিষয়টি নিয়ে ভালো অনুসন্ধানী প্রতিবেদন ছিলো। বালিয়াকান্দি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা একেএম হেদায়েতুল ইসলাম বিষয়টি অধিকতর গুরুত্ব দিয়ে ব্যবস্থা নিয়েছেন, ফলে টাকা উদ্ধার করা সম্ভব হয়েছে। অসহায় মানুষগুলো টাকা ফেরত পেয়েছে।


     এই বিভাগের আরো খবর