ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৪ জুলাই, ২০২০ ()
শিরোনাম
Headline Bullet স্ত্রীর সঙ্গে শারীরিক সম্পর্কের লোভ দেখিয়ে খুন! Headline Bullet রিজেন্ট ও জেকেজির গডফাদাররা ধরাছোঁয়ার বাইরে কেন, প্রশ্ন রিজভীর”: Headline Bullet লামা উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) বেগম নুর-এ-জান্নাত রুমিকে রংপুর বদলি করা হয়েছে:” Headline Bullet গৌরীপুরে শোক র‌্যালি: Headline Bullet গাইবান্ধায় নারী ও শিশু নির্যাতনকারীদের শাস্তির দাবীতে পিবিআই কে স্মারকলিপি প্রদান “: Headline Bullet কুমারখালীতে শ্রমিকদের শ্রমের না দিয়ে হয়রানি”: Headline Bullet শ্রমিকনেতা খুন: শ্রমিকদের আন্দোলনে সুরমা থানার ওসি বদলি”: Headline Bullet কুমারখালী (কুষ্টিয়া)”: শহরের দীর্ঘস্থায়ী জলাবদ্ধতায় জনদূর্ভোগ। উপজেলা পরিষদের গেটের সামনের সড়ক থেকে ছবিটি তোলা Headline Bullet কুমারখালীর চাঁপড়া ইউনিয়নের সাঁওতা গ্রাম থেকে ৩২ টি গোখড়া সাপের বাচ্চা উদ্ধার”: Headline Bullet খুলনায় হচ্ছে’শেখ হাসিনা মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়:

কয়া ইউনিয়নের কানন,সালাম মিস্ত্রি, রাসেল,মামুন, ও মুনছুরের মাদকের ব্যবসা রমরমা

কুষ্টিয়া কুমারখালী উপজেলার কয়া ইউনিয়নের বাঘা বাঘা মাদক ব্যবসায়ীরা প্রশাসনের চোখ ফাকি দিয়ে বীর দর্পে চালিয়ে যাচ্ছে তাদের রমরমা মাদকের ব্যবসা। এ যেনো ওপেন খোলা বাজারে বিক্রয় করছে। মাদক সিন্ডিকেটের গডফাদার বানিয়া পাড়া এলাকার মৃত রবিউল ড্রাইভারের ছেলে কানন,একই এলাকার মৃত দূর্লব মিস্ত্রীর ছেলে সালাম মিস্ত্রি, ঘোড়ার ঘাট এলাকার ফার্মেসীর দোকানদার রাসেল,পুলিশের সাথে ক্রসফায়ারে নিহত বিল্লালের ভাই মৃত হিনা সেখের ছেলে মামুন ওরফে হাত কাটা মামুন,আজিম সেখের ছেলে মুনছুর চালিয়ে যাচ্ছে এই রমরমা মাদকের ব্যবসা। সুত্রে জানা যায়,উল্লিখিত মাদক ব্যবসায়ীরা কয়া ইউনিয়নে দীর্ঘ দিন যাবত পাইকারী ও খুচরা মুল্যে এলাকায় ফেন্সিডেল, ইয়াবা,হিরোইন,ও টাপেন্টা ট্যাবলেটের ব্যবসা পরিচালনা করে আসছে। এই সিন্ডিকেটের মাদকের ব্যবসার কারনেই কয়া ইউনিয়ন যেনো ভেসে বেরাচ্ছে মাদকে। শুধু কয়া ইউনিয়নই নয় এদের মাদক বর্তমানে ছড়িয়ে পরেছে সমস্ত কুষ্টিয়া জেলাতে। যার ফলে স্থানীয় এলাকা সহ সমস্ত জেলার তরুন সমাজ সহ বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষ মাদকাসক্ত হয়ে বিপদগামী হয়ে পড়ছে।এলাকাবাসী সুত্রে জানা যায়,কয়া ইউনিয়নের বানিয়া পাড়া এলাকার মৃত রবিউল ড্রাইভারের ছেলে কানন এলাকায় ইয়াবার পাইকারী ব্যবসা করে এবং তার বিরুদ্ধে একাধিক মাদকের মামলাও রয়েছে, দূর্লব মিস্ত্রির ছেলে সালাম মিস্ত্রি ইয়াবার একজন বড় মাপের ডিলার কিন্তু সে খুব চালাক হবার কারনে প্রশাসনের ধরা ছোয়ার বাইরেই রয়েছে, রাসেল ঘোড়ার ঘাট এলাকার ফার্মেসী দোকানদার সে তার দোকানে বসেই টাপেন্টা,পেন্টাডল,সহ মেডিসিন দিয়ে নেশা করা সমস্ত নিষিদ্ধ ঔষধ বিক্রি করে কিন্তু বর্তমানে এই ঔষধের পাশাপাশি ইয়াবার খুচরা ব্যবসা করছে বলেও জানা গেছে, বিল্লাল মোড়ের হিনান সেখের ছেলে মামুন ওরফে হাতকাটা মামুন পাইকারি ইয়াবা ব্যবসায়ীক তার ভাই বিল্লাল পুলিশের সাথে ক্রসফায়ারে নিহত হয়েছে। ক্ষমতাশীন রাজনৈতিক দলের নেতাদের সাথে রয়েছে তাদের চরম সক্ষতা।আর এরই সুবাধে বীর দর্পে চলছে তার রমরমা মাদকের ব্যবসা। তার ভাই এলাকার প্রভাবশালী সন্ত্রাসী ছিলো তাই কেউ তার বিষয়ে সবকিছু জেনেও ভয়ে মুখ খোলেনা এবং আজিম সেখের ছেলে মুনছর মুদির দোকানদার সেও পাইকারী ইয়াবার ব্যবসা করে কিন্তু এলাকার প্রভাবশালী লোকদের সাথে চলাফেরার কারনে কেউ তার বিরুদ্ধে কোন কিছু বলার সাহস পাইনা। নাম প্রকাশ্যে অনিচ্ছুক স্থানীয় এক ব্যাক্তি বলেন, প্রতিদিন সকাল থেকে শুরু করে গভীর রাত অবধী চলে এই সিন্ডিকেটের মাদকের ব্যবসা। এলাকার মধ্যে এই মাদক সিন্ডিকেটের মাদক মাকড়শার জালের মতন বিস্তার করেছে। এদের মাদক সেবন করে নষ্ট হয়ে যাচ্ছে এলাকার উঠতী বয়সী যুব সমাজ।এছাড়াও কুষ্টিয়া শহরের বিভিন্ন অঞ্চলের মাদক ব্যবসায়ীরা মোটর সাইকেল যোগে এসে এদের কাছ থেকে পাইকারী দরে মাদক কিনে খুচরা দরে বিক্রয় করে থাকে। এদের কারনে বর্তমানে মাদক সমস্ত জেলায় ছড়িয়ে পড়ছে। তাই এদের বিরুদ্ধে প্রশাসনের নজরদারি হওয়া জরুরী।


     এই বিভাগের আরো খবর