ঢাকা, সোমবার, ৩০ মার্চ, ২০২০ ()
শিরোনাম
Headline Bullet রাজধানীর মুগদায় ছিনতাইকারীর হাতে গৃহবধূর মৃত্যু Headline Bullet দিল্লিতে মুসলমানদের ওপর হামলার প্রতিবাদে হেফাজতের বিক্ষোভ সমাবেশ Headline Bullet করোনায় ৪০ হাজার মৃত্যু ও গণকবরের প্রস্তুতি নিচ্ছে লন্ডন Headline Bullet কন্যা সন্তান,ভাগ্যবান লোকদের আল্লাহ নেয়ামত হিসাবে উপহার দেন ! Headline Bullet দাদা হত্যা মামলায় নাতি কারাগারে Headline Bullet চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে কাভার্ড ভ্যানের ধাক্কায় মোটরসাইকেল আরোহী নিহত Headline Bullet স্কুলে বিজ্ঞান-মানবিকের বিভাজন না থাকাই ভালো : শেখ হাসিনা Headline Bullet শ্রীপুরের ফ্ল্যাটে স্বামীর মরদেহ সঙ্গেই তিন দিন কাটান সামিরা Headline Bullet লন্ডনে যেতে রাজি বিএনপি চেয়ারপারসন Headline Bullet অবৈধ নছিমন,করিমন গাড়ী থেকে গ্রাম বাংলা ট্যাম্পু পরিবহনের নামে মাসিক চাঁদা আদায়কারী কে এই রুহুল আমিন

কুষ্টিয়ায় অটোরিকশায় বাড়ছে যানজট

ডেস্ক নিউজ:

কুষ্টিয়া শহরে অটোরিকশার সংখ্যা বেড়ে যাওয়ার কারণে যানজটও বাড়ছে। এতে প্রতিনিয়ত স্বাভাবিক চলাচলে দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে শহরবাসীর। অতিরিক্ত অটোরিকশার কারণে শহরের বেশ কয়েকটি জায়গায় বেশিরভাগ সময়ই যানজট লেগে থাকে। এছাড়া অদক্ষ চালকের কারণে এবং যেখানে সেখানে ইউটার্ন নেওয়া ও যাত্রী ওঠানামানোতে প্রতিদিনই ঘটছে ছোট-বড় দুর্ঘটনা।
কুষ্টিয়া পৌরসভা সূত্র জানায়, পৌরসভার লাইসেন্স শাখা থেকে থেকে গত বছর এক হাজার ২৪৮ জন শহরে অটোরিকশা ব্যবসার জন্য ট্রেড লাইসেন্স করেছিলেন। এ বছর করেছেন মাত্র ৬০৪ জন। এক বছরের জন্য একটি অটোরিকশার ভ্যাট ট্যাক্স মিলে দুই হাজার ২৫ টাকা দিয়ে ট্রেড লাইসেন্স করতে হয়।এরপর লাইসেন্স দেওয়া অটোরিকশাগুলো পৌর এলাকায় চলার অনুমতি পায়।
সরেজমিনে দেখা গেছে, অটোরিকশার কারণে সবচেয়ে বেশি যানজটের সৃষ্টি হয় শহরের তিনটা রুটে। সেগুলো হলো, মজমপুর থেকে এনএসরোড হয়ে বড় বাজার, থানামোড় থেকে মোল্লাতেঘরিয়া ও পলিটেকনিক থেকে কলেজ ও হাসপাতাল মোড় হয়ে সাদ্দাম বাজার পর্যন্ত। এই তিন সড়কে মোট পাঁচ কিলোমিটারে দুই হাজারের বেশি অটোরিকশা চলাচল করে। এছাড়া আমিন ফার্মেসি মোড়, হাসপাতাল মোড় ও কোর্টস্টেশন মোড়ে সকালে ও বিকালে সবচেয়ে বেশি জট বাধে।
ট্রাফিক সার্জেন্ট বলেন, ‘শহরের এনএস রোড় ও কুষ্টিয়া-ঝিনাইদহ মহাসড়কের বটতৈল থেকে কুষ্টিয়া-ঈশ্বরদী মহাসড়কের ত্রিমোহনী পর্যন্ত আট কিলোমিটার রাস্তায় অটোরিকশা চলাচল করছে সবচেয়ে বেশি। এসব সড়কে চলতে গিয়ে তারা একে অপরের সঙ্গে প্রতিযোগিতা করে।এসব কারণে তারা যেদিকে পারছে সেদিক দিয়ে চলাচল করছে। ফলে যানজটের সৃষ্টি হচ্ছে।’
কুষ্টিয়া সিটি কলেজের অধ্যক্ষ আজমল গণি আরজু বলেন, ‘অটোরিকশার কারণে শহরে স্বাভাবিক চলাচল করা খুবই কঠিন হয়ে পড়েছে। কোন সড়কে কয়টা অটোরিকশার চলবে তা কর্তৃপক্ষের ঠিক করে দেওয়া উচিত।’
অটোরিকশা চালক সংগ্রাম পরিষদ কুষ্টিয়া জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক জানান, তার পরিষদে ২ হাজার ৩৯টি অটোরিকশা আছে,সেগুলো শহরে চলাচল করে। এর বাইরে আরও ছয় হাজার অটোরিকশা শহরে চলছে, যেগুলো পৌরসভার বাইরে থেকে আসে। বাইরে থেকে আসা অটোরিকশাগুলোই শহরে যানজট তৈরি করছে।
কুষ্টিয়া পৌরসভার লাইসেন্স শাখার পরিদর্শক রফিকুল ইসলাম বলেন, ‘শহর ছাড়াও কুমারখালী ও মিরপুর উপজেলার অনেক অটোরিকশা শহরে এসে চলাচল করে। এতেই মূলত শহরে যানজট বেড়েছে। এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার প্রক্রিয়া চলছে।’
অটোরিকশা চালক রফিকুল ইসলাম জানান, শহরে শুধু আমাদের কারণেই যানজটের সৃষ্টি হয়না। এখানে অন্যান্য পরিবহনের কারণেও যানজট বাধে।
কুষ্টিয়া ট্রাফিক কার্যালয়ের পরিদর্শক বলেন, ‘অটোরিকশা নিয়ন্ত্রণ করতে ট্রাফিক সদস্যরা কাজ করে যাচ্ছে। পৌরসভা চাইলে তাদের সহযোগিতা করা হবে।


     এই বিভাগের আরো খবর