ঢাকা, রবিবার, ২২ মে, ২০২২ ()

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা না থাকায় পিয়ন যখন কর্মকর্তা-

ফজলার রহমান গাইবান্ধা থেকে ঃ
গাইবান্ধার পলাশবাড়ী উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা পিআইও না থাকায় চলতি অর্থ বছরের গ্রামীণ অবকাঠামো রক্ষনাবেক্ষন টিআর ও কাজের বিনিময়ে খাদ্য কর্মসূচি কাবিখা প্রকল্প বাস্তবায়ন কাজ অনেকটা অনিশ্চিত হয়ে পরেছে।

জানা যায় ,গত বছরের ডিসেম্বর মাসে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা জিয়াউর রহমানকে বদলী করে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রান মন্ত্রণালয়ের।

পরে গাইবান্ধা জেলা ত্রান ও পুর্নবাসন কর্মকর্তার এক আদেশে সাদুল্লাপুর উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা রেজাউল করিমকে অতিরিক্ত (দায়িত্ব) হিসেবে পলাশবাড়ী উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা হিসেবে দায়িত্ব প্রদান করা হয়।

একজন পিআইও দুই উপজেলার প্রায় ২০ টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌর সভার কয়েক শ’ প্রকল্প দেখা শোনা,প্রাক্কলন তৈরী সম্ভব না হওয়ায় এসব প্রকল্পের কাজ শতভাগ বাস্তবায়ন অনিশ্চিত হয়ে পরেছে।কাজ না করেই অনেকে তুলে নিচ্ছে প্রকল্পের টাকা।ফলে বাধ্য হয়ে এসব প্রকল্প দেখ ভাল করার দায়িত্ব পালন করছেন অফিস পিয়নরা।

শুধু তাই নয় অফিসার না থাকার সুযোগে পিয়ন আনিছুর রহমান(আনিছ) সরকারি ত্রান ভান্ডার থেকে ইচ্ছে মত শীতবস্ত্র কম্বল বিতরন অব্যাহত রেখেছেন।পলাশবাড়ী উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিসের এই দায়িত্ব পালন করছেন অফিস পিয়ন আনিছুর রহমান(আনিছ)।তার স্ত্রী মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান হওয়ায় এই উপজেলায় তার ক্ষমতার দাপট লক্ষনীয়।

ত্রান ভান্ডার থেকে কম্বল কিভাবে একজন পিয়ন বিতরন করতে পারে জানতে চাইলে পলাশবাড়ী উপজেলা নির্বাহী অফিসার কামরুজ্জামান নয়ন বলেন এটা হওয়ার কথা নয়। আমি শীঘ্রই ত্রান ভান্ডারের খোজ খবর নিচ্ছি।

উল্লেখ্য,পলাশবাড়ী উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিসের অফিস পিয়ন আনিছুর রহমান আনিছ দীর্ঘদিন যাবৎ এই দায়িত্ব পালন করা কালে বিভিন্ন সময়ে বদলির আদেশ হলেও অজ্ঞাত খুঁটির জোরে বহাল তবিয়তে রাজত্ব করে যাচ্ছেন পলাশবাড়ীতেই।কখনো দেখা যায় উপজেলা প্রকৌশলীর ভূমিকায়,কখনোবা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার পরিচয় বহন করতে দেখা যায় সেই সাথে নিজের প্রভাবশালী আত্মীয় স্বজনের পরিচয় বহন করে উপজেলায় বিভিন্নরকম বেআইনি কাজের সাথে লিপ্ত থেকে প্রভাব বিস্তার করে চলেছেন।।।


     এই বিভাগের আরো খবর